চুলের তৈলাক্ত ভাব দূর করবেন কিভাবে জেনে নিন

চুলের তৈলাক্ত ভাব দূর করবেন কিভাবে জেনে নিন

ঝলমলে স্বাস্থ্যোজ্জ্বল চুলের সঙ্গে তেলচকচকে চুলের একটা স্পষ্ট তফাত রয়েছে। ঝলমলে চুল পাওয়ার জন্য যতটা চেষ্টা করা হয়, তেলচকচকে চুলের খপ্পর থেকে ততটাই দূরে থাকা হয়।ঘুম ভেঙে উঠে যদি দেখা যায় মাথা আর চুল তেল চুপচুপে হয়ে রয়েছে, আর শ্যাম্পু করার মতো হাতে একটুও বাড়তি সময় নেই, তা হলে যে কী মুশকিলে পড়তে হয় ভুক্তভোগী মাত্রেই জানে।ঝটপট চুলের তেলাভাব ঢাকার জন্য তখন নানারকম ফন্দিফিকির করতে হয়। তাই এসব না করে কিছু ঘরোয়া উপায় ব্যবহার করলে এই তেলতেলে চুল থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। তাহলে জেনে নেওয়া যাক এই ঘরোয়া উপায় সম্পর্কে।

১.শ্যাম্পু যত্ন সহকারে করতে হবে- চুলের তেলতেলে ভাব দূর করতে প্রথমে শ্যাম্পু যত্নের সঙ্গে করতে হবে।শ্যাম্পু করতে হবে চুলের গোড়ায়।শ্যাম্পু করার সময় নখ ব্যবহার করা যাবে না। এছাড়াও জোরে জোরে মাথা ঘষা চলবে না। এতে স্ক্যাল্পে প্রদাহ হয়ে আরও তেল বেড়োতে পারে।

২.হিট স্টাইলিং এর ব্যবহার সীমিত রাখতে হবে- স্ট্রেটনার আর আয়রনের ব্যবহারে চুল দারুণ সুন্দর দেখায় ঠিকই, কিন্তু এ সব জিনিস আদৌ চুলের বন্ধু নয়। এমনকী, চুল আর স্ক্যাল্প অতিরিক্ত তেলতেলে হয়ে যাওয়ার পেছনেও হিট স্টাইলিং টুলের ভূমিকা আছে।তাই চুল স্বাভাবিক রাখতে হবে ও খোলা হাওয়ায় শুকাতে হবে৷

৩.পরিষ্কার চিরুনি ও হেয়ারব্রাশ ব্যবহার করতে হবে- চিরুনি আর ব্রাশের গায়ে লেগে থাকা চুল রোজ পরিষ্কার করে ফেলতে হবে। সপ্তাহে অন্তত একদিন কোমল সাবান দিয়ে ব্রাশ আর চিরুনি ধুয়ে ফেলতে হবে। তাতে সমস্ত জীবাণু, ব্যাকটেরিয়া, জমে থাকা তেলময়লা আর প্রডাক্টের অবশেষ ধুয়ে পরিষ্কার হয়ে যাবে।নিয়মিত চিরুনি পরিষ্কার না করলে তার গায়ে লেগে থাকা তেলময়লা ফের চুলেই লেগে যাবে, স্ক্যাল্পও আরও তেলতেলে লাগবে।

৪.তেলনিরোধী প্রাকৃতিক উপাদান ব্যবহার করতে হবে- ক্ল্যারিফায়িং শ্যাম্পু স্ক্যাল্প থেকে তেল ধুয়ে চুল ফুরফুরে রাখে। কিন্তু শুধু সেটুকুই যথেষ্ট নয়। শ্যাম্পু তো করতে হবে, পাশাপাশি অয়েল ফাইটিং প্রাকৃতিক উপাদান দিয়েও চুলের যত্ন নিতে হবে।সেরকমই একটি উপাদান হল অ্যালো ভেরা। চুল আর স্ক্যাল্পের বাড়তি তেলাভাব রুখে চুলে পুষ্টি জোগায় অ্যালো ভেরা, পাশাপাশি চুল কোমল রাখে।

৫.চুলের পরিচর্যা পরিষ্কার ভাবে করতে হবে- চুল নিয়ে বেশি টানাটানি করলে তা দুর্বল হয়ে যায়, ভেঙে যাওয়ার আশঙ্কাও বাড়ে। শুধু তাই নয়, তাতে স্ক্যাল্পের তেলতেলেভাবও বেড়ে যায়।চুল শ্যাম্পু করার সময়, আঁচড়ানোর সময়, স্টাইলিং করার সময়, এমনকী মাথা চুলকোতে হলেও বেশি জোরে ঘষা চলবে না।রুক্ষভাবে চুল আঁচড়ালে স্ক্যাল্পে প্রদাহ শুরু হবে, যার ফলে স্ক্যাল্পে বেশি করে সেবাম উৎপাদন শুরু হতে পারে। এতে চুল খুব তেলতেলে হয়ে যাবে। তাই চুলের পরিচর্যা করতে হবে কোমল হাতে, যত্ন নিয়ে।

৬.আপেল সাইডার ভিনিগার এর ব্যবহার- এটা এক ধরনের অ্যান্টি-ইচিং এজেন্ট হিসেবে কাজ করে। স্ক্যাল্প খুব বেশি তৈলাক্ত হলে কোন রকম জল না মিশিয়ে সরাসরি ড্রপার দিয়ে স্ক্যাল্প এ ব্যবহার করা যেতে পারে সপ্তাহে ২-৩ দিন। যদি মোটামুটি তৈলাক্ত হয় তাহলে ১:১ অনুপাতে জলের সাথে মিশিয়ে সপ্তাহে একদিন করে ব্যবহার করলেই হবে। ধীরে ধীরে স্ক্যাল্প এর তৈলাক্ততা কমে আসবে।