ত্বক ভালো রাখতে চাইলে নিয়মিত ব্যবহার করুন ক্যাস্টর অয়েল

ত্বক ভালো রাখতে চাইলে নিয়মিত ব্যবহার করুন ক্যাস্টর অয়েল

ক্যাস্টর অয়েল— চুলের যত্নে এর কার্যকরিতার কথা কমবেশি জানেন সবাই। কেবল চুল নয়, ত্বকের যত্নেও এটি বেশ উপকারী। নিয়মিত ক্যাস্টর অয়েল ব্যবহারে ত্বকের বলিরেখা দূর হবে সহজেই। এছাড়া ত্বক নরম ও উজ্জ্বল করতে চাইলে নিয়মিত ম্যাসেজ করতে পারেন এটি।এই তেলে আছে নানান উপকারি উপাদান।

এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি রয়েছে ৮৫-৯৫% রিসিনোলিক, ২-৫% অলিক আ্যসিড , ১-০.৫% লিনোটিক, ০.৫-১% স্টিয়্যারিক, ০.৫-১% পালমিটিক আ্যসিড । আসল ক্যাস্টর অয়েল এক ধরনের খুব হালকা হলদে রঙের বেশ ভারি তেল, যার বিশেষ স্বাদ এবং গন্ধ রয়েছে। তাহলে জেনে নেওয়া যাক ত্বকের কি কি উপকার করে এই ক্যাস্টর অয়েল।

১.ব্রণ দূর করতে- ব্রণ ও ব্রণের দাগ দূর করতে পারে ক্যাস্টর অয়েলে থাকা ফ্যাটি অ্যাসিড। রাতে ঘুমানোর আগে ক্যাস্টর অয়েল চক্রাকারে ম্যাসাজ করতে হবে ত্বকে। সকালে কুসুম গরম জল দিয়ে ধুয়ে ফেলতে হবে।

২.রোদে পোড়া দাগ দূর করতে- ত্বকের রোদে পোড়া দাহ দূর করতে ক্যাস্টর অয়েলের সঙ্গে লেবুর রস মিশিয়ে ত্বকে লাগাতে হবে। আধা ঘণ্টা পর ধুয়ে ফেলতে হবে।

৩.বলিরেখা দূর করতে- ত্বকের বলিরেখা দূর করতে কার্যকরী উপায় হল ক্যাস্টর অয়েল।ত্বকের বলিরেখা দূর করতে প্রতিদিন আলতো হাতে ম্যাসাজ করতে হবে ক্যাস্টর অয়েল।

৪.হাতের যত্নে- হাতের ত্বক শুষ্ক হয়ে গেলে আমন্ড অয়েলের সঙ্গে ক্যাস্টর অয়েল মিশিয়ে ম্যাসাজ করতে হবে। রুক্ষতা দূর হয়ে যায়।

৫.ত্বকের প্রদাহ কমায়- ক্যাস্টর অয়েলে প্রদাহ-বিরোধী বৈশিষ্ট্য বর্তমান। এটি ত্বকের জ্বালাভাব দূর করার ক্ষেত্রে অত্যন্ত কার্যকর। গবেষণা অনুযায়ী, ক্যাস্টর অয়েলের ত্বকে প্রয়োগের ফলে আর্থ্রাইটিসের লক্ষণ কমতে পারে। এটি ফোলাভাব, ব্রণ ও আই ব্যাগ কমাতে পারে।

৬.ত্বকের আদ্রতা বজায় রাখে- ত্বককে ময়েশ্চারাইজ করতে সাহায্য করে ক্যাস্টর অয়েলে রয়েছে ট্রাইগ্লিসারাইড। এটি ত্বকের আর্দ্রতা বজায় রাখতে সাহায্য করে। শুষ্ক ত্বকের চিকিৎসার ক্ষেত্রে ক্যাস্টর অয়েল দুর্দান্ত কার্যকর।